শিরোনাম

প্রকাশঃ ২০২৪-০৪-০১ ০৯:৩১:৫৪,   আপডেটঃ ২০২৪-০৫-২০ ১৪:১৭:০২


'নির্বাচন ছিল ম্যাকানিজম, দেবিদ্বারে আ.লীগ নেতার বক্তব্য ঘিরে বিতর্কিত’

'নির্বাচন ছিল ম্যাকানিজম, দেবিদ্বারে আ.লীগ নেতার বক্তব্য ঘিরে বিতর্কিত’

নিজস্ব প্রতিবেদক 

জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ‘ম্যাকানিজম’ বলে আখ্যা দিয়েছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। এ ঘটনার একটি ভিডিও এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রোশন আলী মাস্টারের এই ভিডিও বক্তব্য নিয়ে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে সমালোচনার ঝড় বইছে। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শনিবার (৩০ মার্চ) বিকেলে রোশন আলী মাস্টার ওমরা হজ্ব পালনের উদ্দ্যেশে মক্কায় গমন উপলক্ষে দেবিদ্বার পৌর এলাকার তার নিজ বাসভবনে একটি ইফতার মাহফিলে ওই বিতর্কিত বক্তব্য রাখেন। ওই সময়ে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা-৪ (দেবিদ্বার) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য রাজী মোহাম্মদ ফখরুল। তার এ বিতর্কিত বক্তব্যে তাৎক্ষনিক ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন দেবিদ্বার উপজেলা আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতা-কর্মীরা।

সাড়ে চার মিনিটের ওই ভিডিওতে আওয়ামী লীগ নেতা রোশন আলী মাস্টারকে বলতে শোনা যাচ্ছে, 'ভোটে আমরা হারিনি। ম্যাকানিজম করে হারানো হইছে। যেকোন কারণে আমরা রেজাল্ট নিতে পারেনি। ৮২ হাজার ভোট কী কম? এগুলোর অনেক ইতিহাস, এগুলো আপনারা বুঝবেন না। আপনাদের ভাইঙ্গা বুঝাইতে অইব। যাদেরকে আমি নেতা বানাইছি তারা আমারে এখন চেট (আঞ্চলিক গালি) দিয়াও গনে না।'

এ সময় তিনি নেতাকর্মীদের উ˜েদ্যশ্য করে বলেন, 'আমাদের দলে অনেক মীর জাফর আছে। এগুলো যুগ যুগ ছিল থাকবে। তারা যদি ভালো হয়ে যায় আমরাও ভালো হয়ে যাবো। আর হজ্ব করার পর যদি দেখি ভালো না হইছে তাহলে মাঠে নাইম্যা পড়বো। 

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের এমন বক্তব্যের পর প্রতিক্রিয়ায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বলেছেন, যেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একটি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট করে সারা বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন, সেখানে তার ওই বক্তব্য সুষ্ঠু নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। তার ওই বক্তব্যে বর্তমান সংসদ সদস্য মো. আবুল কালাম আজাদ ভোট কারচুপির মাধ্যমে নির্বাচিত হয়েছেন এটা তিনি প্রমাণ করতে চেয়েছেন। আমরা অবিলম্বে এমন বক্তব্য প্রতাহ্যারের দাবি জানাচ্ছি, পাশাপাশি তাকে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকেও অব্যাহতির দাবি জানাচ্ছি। 

দেবিদ্বার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর বলেন, এর আগেও তার মোবাইল ফোনের অডিও ভাইরাল হয়েছে। তার লাগামহীন এসব কর্মকা-ে দল বিব্রত হচ্ছে। দেশের সাধারণ মানুষ বিব্রত হচ্ছে। মানুষকে ভুল মেসেজ দিচ্ছেন তিনি। সাধারণ মানুষের কাছে আওয়ামী লীগ হাস্যরসে পরিণত হচ্ছে।

এই আওয়ামী লীগ নেতা আরও বলেন, দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের বিভিন্ন সভায় তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী ও তার নেতাকর্মীদের গালিগালাজ করেও বক্তব্য রেখে বিতর্কিত হোন। যা সবাই দেখেছেন ও শুনেছেন। এর আগে বিএনপির এক নেতা সাথে তার ফোনালাপ ফাঁস হয়। ওই ফোনালাপে তাকে বলতে শোনা গেছে, ‘আওয়ামী লীগ ও নৌকা যারা করে তারা সব রাজাকারের বাচ্চা থৈ। তার কর্মকা-ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতারাও বিব্রত। আসলে তিনি মাইক হাতে পেলে কি বক্তব্যে দিবেন হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

এ বিষয়ে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রোশন আলী মাস্টার ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিও তাঁর বলে স্বীকার করেন। তিনি বলেন, এই বক্তব্য আমি পজিটিভলি দিয়েছি। নেতাকর্মীদের বুঝানোর জন্য কথার কথা বলেছি। তারা নিজেদের কাজকর্ম করেনি। এছাড়া নির্বাচনে নানান ধরণের ম্যাকানিজম হয়। ম্যাকানিজম ছাড়াতো নির্বাচন হয় না।

তিনি বলেন, এখানে আওয়ামী লীগ নিয়ে বা নির্বাচন নিয়ে কোন কথা হয়নি। নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়নি। আমি বলেছি নেতাকর্মীদের নিয়ে ম্যাকানিজম। অনেক ব্যাপার-সেপার যে থাকে সেটা। তাছাড়া আমি রেজাল্ট নিয়ে কোন কথা বলিনি। একটি মহল বিষয়টি নিয়ে মানুষকে বিব্রত করছে। 

প্রসঙ্গত, ২০২১ সালের ২৮ ডিসেম্বর ওই আওয়ামী লীগ নেতার সাথে বিএনপি নেতা দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. রহুল আমিনের একটি অডিও ফোনালাপ ফাঁস হলে সারাদেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। ওই অডিও কলে তাকে বলতে শোনা গেছে, ‘যারা নৌকা করে তারা সব রাজাকারের বাচ্চাথ। তার শেল্টার নিয়ে বিএনপি যেন আন্দোলন সংগ্রামে মাঠে নামে সে কথাও বলতে শোনা গেছে। 



www.a2sys.co

আরো পড়ুন